৫-জির পর এবার ৬-জি পরিষেবা

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

৫-জি মোবাইল নেটওয়ার্ক পরিষেবার সাক্ষী হয়েছে দেশ। বড় বড় শহরে এ সেবা ঠিকমতো পাওয়া গেলেও সারা দেশে এর সুবিধা পেতে সময় লাগবে আরও কয়েক বছর। এরই মধ্যে নতুন খবর দিল টেক সাইটগুলো। ২০৩০ সালের মধ্যে ৬-জি পরিষেবা চালু হবে বিশ্বে!

অভিজ্ঞরা বলছেন, ৬-জি পরিষেবা পরীক্ষা ও গবেষণা করছে ভারত, জাপান, আমেরিকা, দক্ষিণ কোরিয়াসহ আরও কয়েকটি দেশ। কিন্তু অন্য সব দেশের তুলনায় এগিয়ে রয়েছে চীন। দেশটির টেক প্রতিষ্ঠান জেডটিই দাবি করেছে, তারা ১ মিলিয়ন গিগাবিট নেটওয়ার্ক গতির সন্ধানে ৬-জি নিয়ে গবেষণা শুরু করেছে। সংস্থাটি জানিয়েছে, তারা এই প্রযুক্তিতে নতুন কিছু উদ্ভাবনের সন্ধান করছে। রিপোর্ট বলছে, ২০২২ সালে জেডটিই ৬-জি গবেষণায় ১৬ বিলিয়ন ইউয়ান খরচ করেছে। এই অর্থ প্রতিষ্ঠানটির আয়ের প্রায় ১৭ শতাংশ বলে জানা গেছে। মোবাইল যোগাযোগের ক্ষেত্রে ৬-জি একটি বড় নেটওয়ার্ক তৈরি করবে। তবে এর পরীক্ষার কাজ এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

এদিকে ২০২৮ সালনাগাদ বাণিজ্যিকভাবে ষষ্ঠ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। বার্সেলোনায় অনুষ্ঠেয় মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে বক্তব্য দেওয়ার সময় দেশটির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রী লিম হাইসুক এ কথা জানান। সম্প্রতি এ ক্ষেত্রে সাফল্য পেয়েছে এলজি কোম্পানিও। দক্ষিণ কোরিয়ার 
এই প্রযুক্তি জায়ান্টটি ৩২০ মিটার দূরত্বে ১৫৫ থেকে ১৭৫ গিগাহার্টজ ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জে ৬-জি টেরা হার্টজ ডেটার ওয়্যারলেস ট্রান্সমিশন পরীক্ষা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *