ঘোড়াশাল বিদ্যুৎকেন্দ্র: তিন বছরের প্রকল্পে আট বছর

বাংলাদেশ

দুই দফা সময় বাড়িয়েও শেষ হয়নি ঘোড়াশাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের চতুর্থ ইউনিট আধুনিকায়নের কাজ। ছয় মাস আগে প্রকল্পের বাড়তি মেয়াদও পার হয়েছে। এ অবস্থায় নতুন করে ১৪২ কোটি ২০ লাখ টাকা ও দেড় বছর সময় চেয়েছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। এতে তিন বছরের প্রকল্পে লাগবে আট বছর।

‘ঘোড়াশাল চতুর্থ ইউনিট রি-পাওয়ারিং প্রকল্প’-এর দ্বিতীয় সংশোধনী প্রস্তাব জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় তোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে পরিকল্পনা কমিশন।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে উৎপাদন বাড়াতে এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটির আধুনিকায়ন ও উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়, যা ২০১৯ সালের জুনের মধ্যেই শেষ হওয়ার কথা। শুরুতে মূল খরচ ছিল ২ হাজার ২৯ কোটি টাকা। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় প্রথম দফায় ৪২ কোটি টাকা খরচ এবং সময় তিন বছর বাড়ানো হয়। কিন্তু কাজ হয়নি। গত জুনে প্রকল্পের মেয়াদও শেষ হয়েছে। গত জুন পর্যন্ত ছয় বছরে প্রকল্পটিতে খরচ হয়েছে ১ হাজার ৪৭৮ কোটি টাকার মতো, যা ব্যয়ের তিন ভাগের দুই ভাগ। এখন মেয়াদ শেষের ছয় মাস পর প্রকল্পের মেয়াদ আরও দেড় বছর এবং ব্যয় বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

জানতে চাইলে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য (উৎপাদন) এস এম ওয়াজেদ আলী সরদার আজকের পত্রিকাকে বলেন, নানা কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির কাজে কিছুটা দেরি হয়েছে। তবে এখন কাজ প্রায় শেষ দিকে রয়েছে। এ কেন্দ্রে গ্যাস টারবাইনটার (আধুনিকায়ন) কাজ হয়েছে, তবে স্টিম টারবাইনের কাজ হয়নি, আলাদাভাবে কাজ করতে হবে। তবে এক বছরের মধ্যেই এ ইউনিটের কাজ শেষ হবে।

প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষ বলছে, বিদ্যুৎকেন্দ্রের পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান স্টিম টারবাইন পরিবর্তনের বিষয়ে সুপারিশ করেনি। কিন্তু স্টিম টারবাইন সংস্কার ছাড়া কাঙ্ক্ষিত বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব নয়। নতুন করে স্টিম টারবাইন স্থাপন করতে অতিরিক্ত প্রায় ১৫০ কোটি টাকা খরচ করতে হবে।

প্রকল্প প্রস্তাবে বলা হয়, ২০৪১ সাল নাগাদ দেশের সম্ভাব্য বিদ্যুৎ চাহিদা পূরণের অংশ হিসেবে ১৯৮৯ সালে স্থাপিত স্টিম সাইকেল বিদ্যুৎ ইউনিটকে রি-পাওয়ারিং করে ৪০৩ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্রে রূপান্তরের উদ্যোগ নেওয়া হয়।

২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর একটি নতুন টারবাইন মডেল যুক্ত করা হয়। প্রকল্পের প্রি-কমিশনিং কাজ শেষে সিঙ্ক্রোনাইজ করতে গেলে উচ্চমাত্রার কম্পনের কারণে তা ব্যর্থ হয়। ২০২০ সালের ২৩ জুলাই নতুন টারবাইনটি সিঙ্ক্রোনাইজ করা হলেও উচ্চ কম্পনের কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। একই বছরের ৯ অক্টোবর আবারও কমিশনিংয়ের কাজ শেষে আবার চালু করা হয়। কিন্তু কম্পন বেশি থাকার কারণে স্টিম টারবাইন একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। ফলে সিম্পল সাইকেল মোডে চলছে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি। এতে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ২৪০ মেগাওয়াট, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৬৯ মেগাওয়াট কম। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *