যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লাইট বিঘ্ন ‘করাপ্টেড ফাইল’ থেকে

আন্তর্জাতিক

ফ্লাইট নিয়ন্ত্রণব্যবস্থায় ত্রুটির কারণে যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবন্দরগুলো থেকে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছিল। পরে অবশ্য সেটি চালু হয়। আজ বৃহস্পতিবার স্কাই নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘করাপ্টেড ফাইল’ থেকে ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের কম্পিউটার সিস্টেমে ত্রুটির কারণে ফ্লাইট বিপর্যয় দেখা দেয়।

ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) এক টুইট বার্তায় জানায়, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতভর বন্ধ থাকার পর ত্রুটি সারিয়ে সকাল ৯টা (বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টা) থেকে আস্তে আস্তে ফ্লাইট উড্ডয়ন পুনরায় শুরু হচ্ছে।

হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে বলা হয়, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ‘সাইবার হামলার’ কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

এফএএর টুইট বার্তায় বলা হয়, পাইলটদের ফ্লাইট রুটে সম্ভাব্য বিপদ নিয়ে সতর্ক করে যে ব্যবস্থা, তাতে ত্রুটি দেখা দিয়েছিল।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় ১০ হাজার ফ্লাইট ওঠানামায় বিলম্ব হয়েছে এবং ১ হাজার ৩০০ ফ্লাইট বাতিল হয়।

কী কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে, সেটা খুঁজে দেখতে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ‘একটি পূর্ণাঙ্গ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন’ বলে টুইটারে জানান হোয়াইট হাউসের প্রেসসচিব। মূলত এয়ার মিশনস সিস্টেমের নোটিশ দেওয়ার অংশে এই ত্রুটি দেখা দিয়েছে বলে এফএএ জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *