প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস না পেলে আন্দোলন

বাংলাদেশ

বেতন-ভাতা বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকারি কর্মচারীদের সংগঠনগুলো। জাতীয় সংসদে সরকারি চাকুরেদের জন্য নতুন পে-স্কেল বা মহার্ঘ ভাতা দেওয়ার পরিকল্পনা এ মুহূর্তে নেই- অর্থমন্ত্রীর এমন ঘোষণা দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত কয়েক দিনে কর্মচারী সংগঠনগুলোর নেতারা একাধিক বৈঠক করেছেন। গত বুধ ও বৃহস্পতিবার সরকারি অফিসগুলোতে এ বিষয়ে আলোচনা-সমালোচনা ছিল তুঙ্গে। গতকাল শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে কর্মচারী সংগঠনগুলোর একটি গ্রুপ বৈঠক করেছে। অপর একটি গ্রুপের বৈঠক হয়েছে ধানমন্ডিতে।

সর্বশেষ ২০১৫ সালে বেতন কাঠামো ঘোষণা করেছিল সরকার। কর্মচারীদের প্রত্যাশা, প্রতি পাঁচ বছর পরপর নতুন বেতন কাঠামো ঘোষণা করা হবে। অন্যথায় স্থায়ী বেতন কমিশন গঠন করে প্রতিবছর মূল্যস্ম্ফীতি অনুযায়ী কর্মচারীদের বেতন সমন্বয় করা। সংশ্নিষ্টরা বলছেন, গত বেতন কমিশন গঠনের পর এমন একটি উদ্যোগের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু কার্যকর করা হয়নি। কর্মচারী সংগঠনগুলোর নেতারা বলছেন, গত মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রীর ঘোষণায় নিম্ন আয়ের সরকারি কর্মচারীরা খুবই হতাশ হয়েছেন। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে পরিবারের ব্যয়ভার বহনে সমস্যায় আছেন কর্মচারীরা। এ কারণে সংগঠনের কর্মী পর্যায় থেকে আন্দোলনে যাওয়ার চাপ রয়েছে। তবে আন্দোলনে যাওয়ার আগে সংগঠনের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে বার্তা পাওয়ার চেষ্টা করছেন। ইতিবাচক কোনো বার্তা পেলে আন্দোলনের দিকে হাঁটবেন না তাঁরা। আর যদি সরকারপ্রধানের কাছ থেকে পরিস্কার কোনো বার্তা না আসে, তাহলে আন্দোলনের পথে প্রস্তুতি নিয়ে এগোচ্ছেন সংগঠনের নেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *