সংস্কার অব্যাহত রাখার তাগিদ আইএমএফের

অর্থনীতি

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণ পেতে বাংলাদেশ সরকার যেসব সংস্কার উদ্যোগ নিয়েছে, সেগুলো অব্যাহত রাখার তাগিদ দিয়েছে ঢাকা সফররত সংস্থাটির উপব্যবস্থাপনা পরিচালকের (ডিএমডি) নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল। গতকাল রোববার পাঁচ দিনের সফরের প্রথম দিনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের সঙ্গে আলাদা বৈঠকে আইএমএফ প্রতিনিধি দল তাদের এ অবস্থানের কথা জানিয়েছে।

বাজেট সহায়তা এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় অর্থায়নে আইএমএফের ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ নিয়ে চূড়ান্ত আলোচনা করতে গত শনিবার ঢাকায় আসে আইএমএফের ডিএমডি অ্যান্তইনেত মনসিও সায়েহের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল। এই দলে সংস্থাটির প্রধান কার্যালয়ের এশিয়া ও প্যাসিফিক বিভাগের আইএমএফ মিশনপ্রধান রাহুল আনন্দ ছাড়া আরও চার কর্মকর্তা রয়েছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারি আইএমএফের পর্ষদে বাংলাদেশের ঋণ প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য উঠবে। অনুমোদন হলে সংস্থাটি ৪২ মাসে সাত কিস্তিতে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দেবে বাংলাদেশকে। ঋণের প্রথম কিস্তির ৩৬ কোটি ডলার বাংলাদেশ পাবে আগামী মার্চে। পরের প্রতিটি কিস্তি ছাড়ের আগে শর্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি দেখবে আইএমএফ।

আইএমএফের পরামর্শে সরকার এরই মধ্যে জ্বালানি তেল ও বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে। যদিও সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছে, আইএমএফের শর্তের কারণে নয়, দর বাড়ানো হয়েছে বাড়তি ভর্তুকি দেওয়ার সক্ষমতা কমে আসার কারণে। জ্বালানির দর আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয়, রাজস্ব খাতে সংস্কার, ব্যাংকে সুশাসন প্রতিষ্ঠাসহ বেশ কিছু ক্ষেত্রে সংস্কারের পরামর্শ রয়েছে আইএমএফের।

রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে বৈঠক করে আইএমএফ প্রতিনিধি দল। অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে বিশ্ব অর্থনীতির সাম্প্র্রতিক গতিপ্রকৃতি এবং বাংলাদেশের চলমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। বৈশ্বিক উচ্চ মূল্যস্টম্ফীতি, সুদের হার বৃদ্ধি, রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট ইত্যাদি কারণে উন্নয়নশীল ও উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর করণীয় আলোচনায় উঠে আসে। চলমান সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশের সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয়ে ডিএমডি সন্তোষ প্রকাশ করেন। সরকারের এরই মধ্যে ঘোষিত ও মৌলিক সংস্কার কার্যক্রমগুলো অব্যাহত রাখার ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণ দিতে আইএমএফ প্রাথমিকভাবে সম্মত হওয়ায় অর্থমন্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ ঋণ কর্মসূচিতে সরকারের পক্ষ থেকে প্রস্তাবিত সংস্কার কার্যক্রমগুলো সমর্থন করায় তিনি আইএমএকে ধন্যবাদ জানান।

বৈঠকে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বের ৩৫তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। আমাদের জিডিপি এখন ৪৬৫ বিলিয়ন ডলার।

পরবর্তী লক্ষ্য ২০৩১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি স্মার্ট উন্নত দেশে পরিণত হওয়া। উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক সম্পদের পর্যাপ্ত সংকুলান নিশ্চিত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে বরাবরের মতো বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগীদের সহযোগিতা প্রত্যাশা করছে সরকার।

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব শরিফা খান, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব ড. মো. খায়েরুজ্জামান মজুমদারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গত জুলাইয়ে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ চেয়ে আইএমএফকে চিঠি পাঠানো হয়। এর পর গত ২৬ অক্টোবর থেকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত ঢাকায় সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের সঙ্গে দুই সপ্তাহের বৈঠক করে রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে আইএমএফের দল। তারা চলে যাওয়ার দিন আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়, বাংলাদেশ ঋণ পেতে পারে।

গভর্নরের সঙ্গে বৈঠক: আইএমএফের ডিএমডির সঙ্গে বৈঠক বিষয়ে গতকাল মুদ্রানীতি ঘোষণা অনুষ্ঠানে গভর্নরের কাছে জানতে চাওয়া হয়। এ বিষয়ে তিনি বলেন, বৈঠকে বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া সুদহার, মূল্যস্ম্ফীতি, বিনিময় হার ব্যবস্থা নিয়ে তারা জানতে চেয়েছিলেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে এসব বিষয়ে জানানো হয়েছে। দেশের অর্থনীতির অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করে আইএমএফের সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলে প্রতিনিধি দল জানিয়েছে।

জানা গেছে, আজ সোমবার সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবে আইএমএফ প্রতিনিধি দল। এ সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিনসহ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা উপস্থিত থাকবেন। এ দিন বিকেলে বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে তাদের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার প্রতিনিধি দল যাবে জাতীয় সংসদে। সেখানে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করবে তারা। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ আয়োজিত মোজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে অংশ নেবে আইএমএফ ডিএমডি। এরপর বুধবার প্রতিনিধি দল যাবে পদ্মা সেতু দেখতে এবং ওই দিনই তারা ঢাকা ছাড়বেন। এ ছাড়া সফরের সময় দলটি মেট্রোরেল এবং একটি তৈরি পোশাক কারখানাও পরিদর্শনে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *