বিশ্বের প্রথম ফোল্ডিং কার

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

যেদিন খুব জরুরি কাজ থাকে, সেদিনই যেন অতিমাত্রায় যানের জটলা লেগে যায় রাস্তায়। যন্ত্রণার আর শেষ থাকে না। এমন অসহনীয় অবস্থায় খানিকটা চিপাচাপা রাস্তা খুঁজে পেয়েছেন হয়তো। কিন্তু সে রাস্তা ব্যবহারে যে গাড়িটিতে আপনি সওয়ার হয়েছেন তার প্রস্থ বড় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। আপনাকে না সামনে, না পেছনে যেতে দিচ্ছে। তখন আপনার বহুল প্রচলিত ‘মাইনকার চিপা’ কথাটি খুব মনে পড়বে এবং এর গূঢ় অর্থ অনুধাবনে কোনো অভিধানের পাতা ওলটাতে হবে না।

পৃথিবীর ব্যস্ত-বাগীশদের এমন চিপার অস্বস্তিকর চাপ থেকে মুক্তি দিতে এগিয়ে এসেছে ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠান ‘সিটি ট্রান্সফরমার’। গত বছরের অক্টোবরে প্যারিসে অনুষ্ঠিত জমজমাট মোটর শোতে তাদের নির্মিত চার চাকার ছোট্ট এবং আকর্ষণীয় নকশার বৈদ্যুতিক গাড়ি দর্শনার্থীদের দৃষ্টি কেড়েছে। চলতি অবস্থায় প্রয়োজনে গাড়িটির প্রস্থ এক-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনা যায় অনেকটা ভাঁজ করার মতো! তাই এর শিরোপা জুটেছে ‘বিশ্বের প্রথম ফোল্ডিং কার’ হিসেবে।

সামনে ও পেছনে দুই আসনের এ গাড়িটির ব্যাটারি ছাড়া ওজন হচ্ছে ৪৫০ কেজি, অর্থাৎ ৯৯২ পাউন্ড, উচ্চতা ১৫৩ সেন্টিমিটার বা ৬০ ইঞ্চি, লম্বায় ১৪৮ সেন্টিমিটার বা ৯২ ইঞ্চি এবং চওড়ায় ১৪৮ সেন্টিমিটার বা ৫৭ ইঞ্চি।

প্রয়োজনে স্টিয়ারিং হুইলে বসানো বোতামটি টিপে মাত্র ৫ সেকেন্ডে প্রশস্ত ১০০ সেন্টিমিটার বা ৩৯ ইঞ্চিতে নামিয়ে আনা যাবে। এতে গাড়ির আসন, প্যাডেল ইত্যাদির অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হবে না বা সংকুচিত হবে না মোটেই। শুধু সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৯০ থেকে ৪৫ কিলোমিটারে নামিয়ে আনতে হবে। ভারসাম্য রক্ষার জন্য গতি কম করার এ পরামর্শ দিচ্ছেন নির্মাতারা। গাড়িটির ব্যাটারি চার্জ হতে সময় নেবে ১৫ মিনিট। একবার চার্জ দিলে চালু থাকবে ৫ থেকে ৬ ঘণ্টা, ঘুরে আসা যাবে প্রায় ২০০ কিলোমিটার বা ১২৪ মাইল।

নতুন প্রযুক্তির এমন অভিনব গাড়ির পক্ষে নির্মাতারা যেসব যুক্তি দিয়েছেন তা হলো, উন্নত দেশগুলোতে চালকেরা পার্কিংয়ের জায়গা খুঁজতে গিয়ে বছরে গড়ে ২৫০ ঘণ্টা, অর্থাৎ প্রায় ১১ দিন তাঁদের ক্ষুদ্র জীবন থেকে বিসর্জন দেন। নগরগুলোর অর্ধেক জমি দখল করে আছে নানা ধরনের ও আকৃতির অন্যান্য গাড়ি।

নির্মাতারা বলেছেন, ১০০ সেন্টিমিটার প্রশস্ত জায়গায় চারটি সিটি ট্রান্সফরমার রাখা যাবে। তা ছাড়া এ গাড়িটি কম পরিমাণে কার্বন নিঃসরণ করবে। পরিবেশবান্ধব, অর্থ, সময় সাশ্রয়ী এবং পার্কিংয়ের ঝামেলামুক্ত এই গাড়ির জন্য ইউরোপের বাজারে গুনতে হবে ভ্যাটসহ প্রায় ১৬ হাজার ইউরো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *