কথোপকথন: তাসনিয়া ফারিণ-বড় পর্দায় নিজেকে দেখার অপেক্ষায় আছি

বিনোদন সাক্ষাৎকার

পশ্চিমবঙ্গের ‘আরো এক পৃথিবী’ সিনেমা দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে বাংলাদেশের তাসনিয়া ফারিণের। সিনেমাটি বানিয়েছেন অতনু ঘোষ। আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পাচ্ছে প্রেক্ষাগৃহে। সিনেমার প্রচারে অংশ নিতে ফারিণ এখন কলকাতায়। সিনেমা মুক্তি ও সাম্প্রতিক বিষয় নিয়ে ফারিণের সঙ্গে কথা বলেছেন শিহাব আহমেদ।

নিজের প্রথম সিনেমার প্রচারে কলকাতায় গিয়েছেন। কেমন চলছে প্রচারণা? 
১৯ জানুয়ারি কলকাতায় এসেছি। বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছি। সিনেমাটি নিয়ে সবার সঙ্গে কথা বলছি। ইন্টারভিউ দিচ্ছি। ফটোশুটও করলাম। নিজের প্রথম সিনেমার প্রচার, তাও আবার আরেক দেশে। একেবারেই নতুন অভিজ্ঞতা আমার জন্য।  

কলকাতার দর্শকের কাছ থেকে কেমন সাড়া পাচ্ছেন? 
খুব ভালো সাড়া পাচ্ছি। গতকাল টেকনো ইন্ডিয়া ইউনিভার্সিটিতে গিয়েছিলাম। তাঁদের রেসপন্স দেখে আমি অভিভূত। তাঁদের কাছ থেকে জানতে পারলাম সিনেমাটির জন্য অপেক্ষা করছেন তাঁরাও। 

বড় পর্দায় অভিষেক, শেষ মুহূর্তে কেমন অনুভূতি হচ্ছে?
এক্সাইটমেন্ট ও নার্ভাস দুটোই ফিল হচ্ছে। গত বছর যখন সিনেমা মুক্তির তারিখ দেওয়া হলো, তখন থেকেই এমন লাগছে। প্রথমবার মুক্তির তারিখ পিছিয়ে গেল। এবার নার্ভাসনেসটা একটু বেড়ে গেছে। আর বড় পর্দায় প্রথমবার নিজেকে দেখার অপেক্ষায় আছি। বড় পর্দায় নিজেকে দেখে কেমন ফিল হয় সেই অভিজ্ঞতার অপেক্ষায় আছি।  

সিনেমায় আপনার চরিত্রটি কেমন?
আমার চরিত্রের নাম প্রতীক্ষা। ছোট থেকেই কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে বড় হয়েছে সে। খুবই অন্তর্মুখী চরিত্র। পরিবার, সমাজের নানা ঘাত-প্রতিঘাত সয়ে জীবনযুদ্ধে এগিয়ে চলে সে। বিস্তারিত পর্দায় দেখতে পাবেন। 

এতে আপনার সহ-অভিনেতা ছিলেন কৌশিক গাঙ্গুলী, অনিন্দিতা রায় চৌধুরীসহ অনেকে। তাঁদের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন? 
এককথায় আমি মুগ্ধ। তাঁদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তাঁরা এত বিনয়ী! আমি বয়সে আর কাজের অভিজ্ঞতায় অনেক ছোট, তারপরও আমাকে প্রচুর সময় দিতেন। পুরো টিমের সবাই খুব কো-অপারেটিভ। যে কারণে আমার একবারও মনে হয়নি আমি বাইরের কোনো ইউনিটের সঙ্গে কাজ করছি। অতনু দাদা তাঁর কাজের ব্যাপারে ভীষণ স্পষ্ট। তাই তিনি কী চান আর কী করতে হবে—সবই প্রস্তুত থাকত।  

স্বল্প সময়ের মধ্যে দর্শকের এত ভালোবাসা, বড় পর্দায় অভিষেক। সবকিছু মিলিয়ে নিজের কাছে কী মনে হয়? 
এটা সত্যি, আমি খুব স্বল্প সময়ে অনেক ভালো কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরেছি। গুণী অনেক অভিনেতা, নির্মাতার সঙ্গে কাজ করতে পেরেছি। নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে হয়। সেই সঙ্গে দর্শকের এত ভালোবাসা। তাঁদের সাপোর্ট না পেলে কিছুই সম্ভব হতো না। তবে কিছুটা প্রেসার ফিল করি কারণ আমার প্রতি সবার প্রত্যাশা বেড়ে গেছে। তাই কাজের সংখ্যার দিকে নজর দিচ্ছি না। কোয়ালিটির দিকে মনোযোগ দিচ্ছি। সংখ্যায় কম হলেও এমন কাজ করতে চাই যেন সবার প্রত্যাশা পূরণ করতে পারি। 

দেশে ফিরছেন কবে?
এখনো সঠিক বলতে পারছি না। তবে সিনেমা মুক্তির পর দেশে ফিরব। 

সেখানে নতুন কোনো কাজের ব্যাপারে কথা হয়েছে কি না? 
কিছু প্রস্তাব এসেছে। কিন্তু গল্প আমাকে টানেনি। আরও কিছু কাজ নিয়ে কথা চলছে। তবে, কাজ করার আগে আমি সে ব্যাপারে কথা বলতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি না। কাজ করলে অবশ্যই সবাইকে জানাব। 

দেশের সিনেমায় তো ভালো সময় ফিরছে। কাজ করার ইচ্ছা আছে কি না? 
‘আরো এক পৃথিবী’ সিনেমার আগেও বলেছি সিনেমায় আমার আপত্তি নেই। আমি যে ধরনের চরিত্র ও গল্পে কাজ করতে চাই, এমন প্রস্তাব এলে দেশের সিনেমায় অভিনয় করব।

ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে কোনো কাজ করেছেন? 
এই যে ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে আমার প্রথম সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে। আসলে এই মুহূর্তে আরো এক পৃথিবী ছাপিয়ে কোনো কিছু নিয়ে কথা বলতে চাচ্ছি না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *