গল্প বানিয়ে দিচ্ছে চ্যাটজিপিটি, লেখা নেওয়াই বন্ধ করল ম্যাগাজিন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আপনি যখন গুগলে কিছু সার্চ করেন, তখন গুগল আপনাকে সেই সার্চ সম্পর্কিত অনেকগুলো ওয়েবসাইট দেখায়। তবে চ্যাটজিপিটি সম্পূর্ণ ভিন্ন উপায়ে কাজ করে। এই চ্যাটবটে আপনি যখন কোনো প্রশ্ন লেখেন, চ্যাটজিপিটি আপনাকে সেই প্রশ্নের উত্তর সরাসরি দেখাবে। চ্যাটজিপিটির মাধ্যমে আপনি প্রবন্ধ, কাভার লেটার, ছুটির আবেদন এমনকি ইউটিউব ভিডিও স্ক্রিপ্টও লিখিয়ে নিতে পারবেন। ফলে এরই মধ্যে এআই প্রযুক্তির সাহায্যে লেখার প্রবণতা বেড়েছে। এআই প্রযুক্তিতে লেখার সংখ্যা এতটাই বেড়েছে যে নিজেদের সাময়িকীর জন্য লেখকদের কাছ থেকে লেখা জমা নেওয়াই বন্ধ করে দিয়েছে জনপ্রিয় মার্কিন ম্যাগাজিন ‘ক্লার্কসওয়ার্ল্ড’।

বিজনেস ইনসাইডারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি ও ফ্যান্টাসিনির্ভর সাময়িকী ক্লার্কসওয়ার্ল্ড— এর সম্পাদক নিল ক্লার্ক এক টুইটে লিখেছেন, ‘শুধু ফেব্রুয়ারিতে বিভিন্ন লেখকের মাধ্যমে জমা নেওয়া গল্পগুলোর মধ্যে ৫০০টির বেশি লেখায় চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই প্রযুক্তির মাধ্যমে লেখার সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় লেখা জমা নেওয়ার কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত রাখা হয়েছে।’

ক্লার্কসওয়ার্ল্ড ম্যাগাজিনে যে কেউ বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি ও ফ্যান্টাসিনির্ভর ছোটগল্প জমা দিতে পারেন। লেখা প্রকাশ হলে শব্দপ্রতি ১২ সেন্ট হিসেবে লেখকদের সর্বোচ্চ ২ হাজার ৬৪০ ডলার পর্যন্ত সম্মানী দিয়ে থাকে ম্যাগাজিনটি। ফলে লেখকেরা ভালো পরিমাণে আয় করতে পারেন লেখালেখির মাধ্যমে। তবে চ্যাটজিপিটি চালুর পর থেকেই এই প্রযুক্তির মাধ্যমে গল্প লিখিয়ে সাময়িকীটিতে জমা দিচ্ছেন অনেক লেখক।

আগেও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই এর মাধ্যমে লিখিত কিছু গল্প জমা হতো ক্লার্কসওয়ার্ল্ড ম্যাগাজিনে। তবে এবার তা ‘অনেক বেশি’। গত বছর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই এর মাধ্যমে লেখা জমা বা অন্যের লেখা নকলের অভিযোগে গড়ে প্রতি মাসে ১০ জন লেখককে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম ২০ দিনেই এ সংখ্যা ৫০০ অতিক্রম করেছে বলে জানিয়েছেন ক্লার্ক।   

সম্প্রতি, লাইসেন্সপ্রাপ্ত চিকিৎসক হওয়ার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় চ্যাটজিপিটি। যুক্তরাষ্ট্রের লাইসেন্সপ্রাপ্ত চিকিৎসক হওয়ার জন্য ‘ইউনাইটেড স্টেট মেডিকেল লাইসেন্সিং পরীক্ষা  (ইউএসএমএলই)’ পরীক্ষা দিতে হয় সদ্য পাস ডাক্তারদের। তিনটি ধাপে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। চিকিৎসা বিষয়ের জ্ঞান ও ব্যবহারিক দক্ষতার মূল্যায়ন করা হয় পরীক্ষায়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক চ্যাটবট চ্যাটজিপিটিতে এই পরীক্ষা নেওয়া হয়। ৩ ধাপে অনুষ্ঠিত এ পরীক্ষায় ৫২ দশমিক ৪ থেকে ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত নম্বর পেয়েছে চ্যাটবটটি। পরীক্ষায় পাস করতে হলে গড়ে ৬০ শতাংশ নম্বর পেতে হয়।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যানসিবল নামের একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসক টিফানি কুন এবং তাঁর সহকর্মীরা এ পরীক্ষা পরিচালনা করেন। ইউএসএমএলই থেকে ছবিভিত্তিক প্রশ্ন প্রদর্শনের পর, গবেষকেরা ইউএসএমএলইয়ের ২০২২ সালের জুনে প্রকাশিত ৩৭৬টি প্রশ্ন থেকে ৩৫০টি প্রশ্ন চ্যাটজিপিটিকে করেন। চ্যাটজিপিটি ৩ ধাপের পরীক্ষায় গড়ে ৬০ শতাংশ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। শুধু তাই নয়, চ্যাটজিপিটির দেওয়া উত্তরগুলো ছিল সামঞ্জস্যপূর্ণ ও অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন।

পিএলওএস ডিজিটাল হেলথ জার্নালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, চ্যাটজিপিটির দেওয়া উত্তরের ৯৪.৬ শতাংশ সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল। ৮৮ দশমিক ৯ শতাংশ উত্তর একেবারে নতুন, দুর্বোধ্য তবে চিকিৎসাগতভাবে বৈধ। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বেশির ভাগ চ্যাটবটের মতো চ্যাটজিপিটি ইন্টারনেট ব্যবহারে করে তথ্য খুঁজতে পারে না। বরং প্রশিক্ষণ দেওয়া তথ্যের মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ প্রক্রিয়ায় স্বয়ংক্রিয়ভাবে লিখতে পারে চ্যাটবটটি। 

গবেষণাপত্রটির লেখক টিফানি কুন বলেন, ‘মানুষের কোনো ধরনের সহায়তা ছাড়াই এমন কঠিন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া স্বাস্থ্য খাতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক।

এর আগে, চ্যাটজিপিটিতে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক পরীক্ষা নেওয়া হয়। দুটি পরীক্ষাতেই পাস করতে সক্ষম হয়েছিল এই চ্যাটবট। তবে কোনটিতেই ভালো নম্বর পায়নি এটি।সিএনএন এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পরীক্ষার চারটি কোর্সে এবং পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হোয়ার্টন স্কুল অব  বিজনেসে পরীক্ষা নেওয়া হয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা চ্যাটবট চ্যাটজিপিটির। আইন পরীক্ষায় মোট ৯৫টি বহুনির্বাচনী প্রশ্ন এবং ১২টি রচনামূলক প্রশ্ন দেওয়া হয় চ্যাটজিপিটিতে। সবগুলি কোর্সে পাস করলেও পেয়েছে ‘সি প্লাস’ গ্রেড। 

অপরদিকে, পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হোয়ার্টন স্কুলের বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কোর্সের পরীক্ষা গুলিতে তুলনামূলক ভালো করেছে এই চ্যাটবট। এই পরীক্ষা গুলিতে বি থেকে ‘বি মাইনাস’ পর্যন্ত গ্রেড পেয়েছে চ্যাটজিপিটি।

হোয়ার্টনের অধ্যাপক ক্রিশ্চিয়ান টেরউইশ বলেছিলেন, ‘বিজনেস ম্যানেজমেন্টের বেসিক অপারেশনস ম্যানেজমেন্ট ও প্রসেস অ্যানালাইসিসের প্রশ্নে চ্যাটজিপিটি খুব ভালো উত্তর দিয়েছে। তবে উচ্চতর বিষয়ের প্রশ্ন গুলিতে ভালো উত্তর দিতে পারেনি এমনকি সাধারণ গণিতে খুব আশ্চর্যজনক ভুল করেছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *