খারকিভে ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালিয়ে প্রতিশোধ নিল রাশিয়া

আন্তর্জাতিক

রাশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমের সীমান্তবর্তী শহর বেলগোরদে ইউক্রেনের হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে প্রতিশোধ নিল রাশিয়া। ইউক্রেনের শহর খারকিভে ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালিয়েছে রুশ বাহিনী। 

আজ রোববার হামলার প্রথম দিকেই অন্তত ৬টি ক্ষেপণাস্ত্র খারকিভে আঘাত করেছে বলে জানায় আঞ্চলিক গভর্নর ওলেহ সিনিয়েহুবভ। এতে অন্তত ২৮ জন আহত হয়েছে বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলেন, রাশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমের সীমান্তবর্তী শহর বেলগোরদে ইউক্রেনের বিমান হামলায় অন্তত ২২ জন বেসামরিক রুশ নাগরিক নিহত হয়েছেন বলে দাবি করার পরই রাশিয়া ইউক্রেনের খারকিভ শহরে হামলা চালায়। এ হামলায় আবাসিক ভবন, হোটেল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

খারকিভ ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলেন, খারকিভে আহতদের মধ্যে ১৪ ও ১৬ বছর বয়সী দুই ছেলে এবং জার্মান সাংবাদিকদের একটি দলের একজন নিরাপত্তা উপদেষ্টা রয়েছেন। 

খারকিভের মেয়র বলেন, রাশিয়ার ড্রোনগুলো শহরের কেন্দ্রে থাকা আবাসিক ভবনগুলোতে আঘাত হানে। 

মেয়র ইহর তেরেখভ বলেন, ‘নতুন বছর শুরু হওয়ার আগে রাশিয়া আমাদের শহরকে আতঙ্কিত করতে চায়। তবে আমরা ভীত নই–আমরা দৃঢ় ও অপরাজেয়।’

খারকিভের ছবিতে বেশ কয়েকটি ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবন ও জানালা ভাঙা একটি হোটেল দেখা যায়।

ইউক্রেনের বিমানবাহিনী বলছে, রাশিয়ার ছোড়া ৪৯টি ড্রোনের মধ্যে ২১টিই ভূপাতিত করা হয়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগ ড্রোনই ফ্রন্টলাইনসহ খারকিভের খেরসন, মাইকোলাইভ ও জাপোরিঝিয়া অঞ্চলকে লক্ষ্য করে ছোড়া হয়েছিল।  

গভর্নর ওলেহ সিনিয়েহুবভ বলেন, পৃথক হামলায় ইউক্রেনের তিনজন নিহত হয়েছে। খারকিভ অঞ্চলের কাছে এক গ্রামেও কামানের গোলা নিক্ষেপ করে রুশবাহিনী । 

বেলগোরদে ‘নির্বিচার হামলা’ হয়েছে বলে দাবি করেছে মস্কো। ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরুর পর কিয়েভের পক্ষ থেকে রাশিয়ায় এই হামলাকে সবচেয়ে ভয়াবহ হিসেবে ধরা হচ্ছে। ক্রেমলিনের দাবি, কিয়েভের হামলায় অন্তত ২১ জন বেসামরিক রুশ নাগরিক নিহত হয়েছে এবং আহত হয়েছে শতাধিক। নিহতের মধ্যে তিন শিশুও রয়েছে বলে দাবি করেছেন বেলগোরদের গভর্নর ব্যাচেস্লাভ গ্ল্যাডকভ।

তবে কিয়েভ দাবি করেছে, তাঁদেরর হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল কেবল সামরিক স্থাপনা। ইউক্রেনের এই হামলার প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

এক বিবৃতিতে ক্রেমলিন বলেছে যে, নিজেদের পরাজয় অনিবার্য জেনে সেদিক থেকে মনোযোগ সরাতে এবং ক্রেমলিনকে উসকানি দিতেই এই হামলা করেছে কিয়েভ। রুশ বিমানবিধ্বংসী ইউনিট গত শুক্রবার বেলগোরদে ১৩টি ইউক্রেনীয় রকেট ধ্বংস করেছে বলে দাবি করেছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

রুশ তদন্ত কমিটিকে উদ্ধৃত করে রুশ সংবাদপত্র কোমারসঁ এক প্রতিবেদনে বলে, ইউক্রেন খারকিভ অঞ্চলের বেশ কয়েকটি রকেট লঞ্চার থেকে বেলগোরদে হামলা করেছে। 

রাশিয়া ও ইউক্রেন— দুই পক্ষই ২০২৩ সালের শেষ সপ্তাহে এসে হামলার তীব্রতা বাড়িয়ে দিয়েছে। গত শুক্রবার ইউক্রেনে রুশ বিমান হামলায় নিহত হয়েছিল ৩৯ জন ইউক্রেনীয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *