আইসিসির বর্ষসেরা যারা

ক্রিকেট ক্রীড়া জগত

২০২৪ সালের আইসিসি ইভেন্ট হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে বসেছে টি-টোয়েন্টি। যেখানে এবার অংশ নিচ্ছে আফ্রিকান দেশ উগান্ডা। নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো তারা কোনো মেজর আইসিসি ইভেন্টে অংশ নিয়েই বড় ছাপ ফেলেছে।

বিশ্বের সব দলের বড় নামগুলোকে টপকে গত বছর টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে সবচেয়ে বেশি উইকেট পেয়েছিলেন উগান্ডার রামজানি। ৩০ ম্যাচে ৪.৭৭ ইকোনমি রেটে বোলিং করে ৫৫টি উইকেট। প্রতি ১১ বলেই উইকেটের দেখা পান বাঁহাতি এই স্পিনার। আর দিয়েছেন ৯ এর কম রান। আফ্রিকা মহাদেশের এই ক্রিকেটারকে সেরার মঞ্চে তাই রাখতেই হচ্ছে।   

২০২৩ সালে আইসিসির বর্ষসেরা পুরুষ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটারের জন্য উগান্ডার আল্পেশ রামজানি ছাড়াও মনোনয়ন পেয়েছেন ভারতের সূর্যকুমার যাদব, জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা ও নিউজিল্যান্ডের মার্ক চ্যাপম্যান। নারী টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটারের সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন অস্ট্রেলিয়ার এলিস পেরি, ওয়েস্ট ইন্ডিজের হেইলি ম্যাথুস, ইংল্যান্ডের সোফি একলস্টোন ও শ্রীলঙ্কার চামারি আতাপাত্তু। রাজমানি ছাড়াও আফ্রিকা মহাদেশ থেকে আছেন জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা। 

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বাদ পড়ে গেলেও রাজা ছিলেন অনবদ্য। ১১ ইনিংসে ৫১.৫০ গড় ও ১৫০.১৪ স্ট্রাইক রেটে ৫১৫ রান করেছেন। পাশাপাশি ১৪.৮৮ গড়ে ১৭ উইকেট নেন তিনি। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ছিলেন ওয়ান ম্যান আর্মি হয়ে। ভারতের সূর্যকুমার যাদব অবধারিতভাবেই আছেন এই লিস্টে। ২০২২ সালের বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড়ের ২০২৩ সালেও ব্যাট হাতে ছিলে অসামান্য। ১৭ ইনিংসে ৪৮.৮৮ গড় ও ১৫৫.৯৬ স্ট্রাইক রেটে করেছেন ৭৩৩ রান। বছরের শেষ দিকে এসে ভারতকে নেতৃত্বও দেন। জোহানেসবার্গে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করেন বছরে নিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি শতক। 

নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যান চ্যাপম্যানের জন্যও বছরটা শুভই বলা যায়। পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫ ম্যাচ সিরিজে করেন ২৯০ রান। সেখানে খেলেন ৫৭ বলে ১০৪ রানের অপরাজিত ইনিংস, যাতে সিরিজ ড্র করে নিউজিল্যান্ড। বছরে সব মিলিয়ে এ সংস্করণে ৫০.৫৪ গড়ে ৫৫৬ রান করতে তিনি ব্যাটিং করেছেন ১৪৫.৫৪ স্ট্রাইক রেটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *